প্রশ্ন ও উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরষ্কার, বিস্তারিত জানতে এখানে দেখুন!
2,546 জন দেখেছেন
Rafi Mahmud "ইন্টারনেট" বিভাগে করেছেন (31 পয়েন্ট)
আজকাল ফেসবুক বা বিভিন্ন অনলাইন মাধ্যমে ঢুকলেই  বিভিন্ন পোস্ট দেখতে পাওয়া যায়। যেমনঃ অনলাইনে ঘরে বসে  আয় করুন।  সহজেই অনলাইনে কাজ পাওয়া কিভাবে যায়? কিভাবে মোবাইল দিয়ে ঘরে বসে আয় করা যায়?

তাই আগ্রহ প্রকাশ করে এখানে প্রশ্ন করলাম।

আসলেই কি অনলাইনে ঘরে বসে আয় করা সম্ভব? নাকি এগুলা ভাওতাবাজি!!!
Hridoy করেছেন (93 পয়েন্ট)
আপনি ইন্টারনেট যা যা দেখেন তার সব কিছু সত্য নয়। কোনটা সত্য আর কোনটা ভুয়া সেটা আপনাকে খুজে বের করতে হবে। এর জন্য গুগোল মামা তো আছে তার সাহায্য নিয়ে এগিয়ে যান। আশা করি উত্তর পেয়ে যাবেন।

10 উত্তর

+24 টি ভোট
Sifat Kazi করেছেন (50 পয়েন্ট)
নির্বাচিত করেছেন
 
সেরা উত্তর

অনেকের মাথায় একটা চিন্তা থাকে অনলাইনে কি টাকা ইনকাম করা যায়! আমি বলব হ্যাঁ, আপনি আশেপাশে খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন অথবা ইন্টারনেট সম্মন্ধে খুব অভিজ্ঞ কোন লোকের কাছে জিজ্ঞাসা করে দেখুন।

এখন আপনিও মনে প্রাণে অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে চান। বুঝতে পারছেন না কিভাবে অনলাইনে টাকা আয় করা যায়

ইন্টারনেট মানুষের জীবনে প্রভাব ফেলছে। মানুষ এখন অনলাইনে অর্থ আয়ের জন্য নানা কৌশল প্রয়োগ করছে। অনলাইনে আয়ের নানা পথও তৈরি হয়েছে। তবে অনলাইনে কাজ করে আয় করতে গেলে কোন প্ল্যাটফর্ম ধরে এগোচ্ছেন, সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।

অনলাইনে আয় করার নানা সুযোগ থাকলেও কিছু কিছু ক্ষেত্রে প্রতারণার মুখে পড়তে হতে পারে। অনলাইনে কাজ করে রাতারাতি কোটিপতি বনে যাওয়ার সুযোগ নেই। তাই এ ধরনের প্রতারণামূলক কাজের ক্ষেত্র থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে হবে। কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, ওয়েবসাইট ও রিসোর্স আছে, যা কাজে লাগিয়ে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

জেনে নিন অনলাইনে আয় করার মাধ্যমঃ 

১. ফ্রিল্যান্সিংঃ

অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার বিষয়টি সবচেয়ে জনপ্রিয়। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সারদের দক্ষতার ওপর ভিত্তি করে ফ্রিল্যান্স কাজের সুযোগ দেয় কয়েকটি ওয়েবসাইট। সেখানে অ্যাকাউন্ট খুলে দক্ষতা অনুযায়ী কাজের জন্য আবেদন করতে হয়। কাজদাতা তাদের প্রয়োজন অনুযায়ী যোগাযোগ করে ফ্রিল্যান্সারকে কাজ দেয়।

কয়েকটি ওয়েবসাইটে কাজের দক্ষতার বিবরণ জানাতে হয়, যাতে ক্রেতা সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন। এসব সাইটের মধ্যে ফাইভার ডটকম, আপওয়ার্ক ডটকম, ফ্রিল্যান্সার ডটকমওয়ার্কএনহায়ার ডটকমে ফ্রিল্যান্সিং কাজ পাওয়া যায়। মনে রাখতে হবে, কাজ শেষ করার পর কাজদাতার অনুমোদন পেলেই তবেই অর্থ ছাড় দেবেন তিনি। এ ক্ষেত্রে কাজের মানের ওপর কাজদাতা রেটিং দিতে পারেন। গ্রাহকের পছন্দ না হওয়া পর্যন্ত কাজ করে দিতে হয় ফ্রিল্যান্সারকে। বিভিন্ন অনলাইন পেমেন্ট মাধ্যম ব্যবহার করে অর্থ আনা যায়।

২. নিজের ওয়েবসাইট তৈরিঃ

এখন নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা খুবই সহজ। ওয়েবসাইট তৈরীর জন্য  ডোমেইন ও হোস্টিং নির্বাচন করতে হবে, এরপর কি বিষয়ের ওপর ওয়েবসাইট রেডি করবেন সেটি ভেবে নিন এবং একজন ওয়েব ডেভলপার এর সাথে যোগাযোগ করে নিন। যখন আপনার ওয়েবসাইট সম্পূর্ন হবে এবং ভিজিটরকে ওয়েবসাইটের বিভিন্ন কনটেন্ট সেবা দেওয়ার প্রস্তুতি সব শেষ হবে, তখন গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আবেদন করতে পারেন। গুগলের বিজ্ঞাপন যখন সাইটে দেখানো শুরু হবে এবং তাতে ক্লিক পড়বে, তখন আয় আসতে শুরু করবে। ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বা দর্শক যত বেশি হবে, আয়ের পরিমাণ তত বাড়বে।

৩. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ

এই পদ্ধতিতে আয়ের ক্ষেত্রেও নিজের ওয়েবপেজ বা ব্লগ প্রয়োজন। যখন ওয়েবসাইট বা ব্লগ চালু হবে, তখন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের লিংক তাতে যুক্ত করতে পারবেন। যখন আপনার সাইট থেকে ওই প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা সেবা কোনো দর্শক কিনবেন, তখনই আপনার আয় আসতে শুরু করবে।

৪. গ্রাফিক্স ডিজাইনঃ

অনলাইনে ঘরে বসে আয়ের ক্ষেত্রে গ্রাফিক্স ডিজাইন ভালো উপায়। যাঁরা এই কাজে দক্ষ, তাঁরা বিভিন্ন ডিজাইন অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতে দিয়ে রাখেন। সেখান থেকে তাঁদের আয় আসে। তাঁদের তৈরি একটি পণ্য অনেকবার বিক্রি হয়, অর্থাৎ একটি ভালো ডিজাইন থেকেই দীর্ঘদিন পর্যন্ত আয় হতে পারে। অনলাইনে এ ধরনের অনেক ওয়েবসাইটে গ্রাফিক্সের কাজ বিক্রি করা যায়। এ ছাড়া অনলাইন মার্কেটপ্লেসগুলোতেও গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের অনেক চাহিদা রয়েছে।

৫. অনলাইন টিউটরঃ

কোনো বিষয়ে যদি আপনার পারদর্শিতা থাকে, তবে অনলাইনে সে বিষয়ে শিক্ষা দিতে পারেন। অনলাইন টিউটরদের এখন চাহিদা বাড়ছে। সব বয়সী শিক্ষার্থীদের আপনি শিক্ষা দিতে পারবেন। এখানে অন্য দেশের শিক্ষার্থীদেরও পড়ানোর সুযোগ রয়েছে। অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে অনলাইন টিউশনির সুযোগ রয়েছে। সেখানে সুবিধামতো সময়ে পড়াতে পারেন ছাত্র। এসব সাইটে নিজের দক্ষতার পরীক্ষা দিতে হয়। একবার নির্বাচিত হয়ে গেলে ওয়েবিনার পরিচালক হিসেবে অনলাইন সেশন পরিচালনা করতে পারেন। দক্ষতা বাড়লে এ ক্ষেত্র থেকে অনেক আয় করার সুযোগ আছে।

৬. সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমঃ

ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাট এখন আর শুধু বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগের জন্য নয়। এগুলো কাজে লাগিয়ে আয় করতে পারেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ডের পক্ষ থেকে সোশ্যাল মিডিয়া পরিকল্পকদের প্রচুর অর্থ দেওয়া হয় তাদের ব্র্যান্ডের প্রচার করার জন্য। অনলাইনে গ্রাহক টানা, প্রচার করার জন্য অবশ্য সৃজনশীলতা দরকার। বিভিন্ন পোস্ট তৈরি, ভিডিওর মাধ্যমে ফেসবুক বা অন্যান্য মাধ্যমে প্রকাশ করে তা ভাইরাল করতে পারলে ভালো অর্থ আসে। তবে সোশ্যাল মিডিয়ায় ফ্যান-ফলোয়ার তৈরিসহ তাঁদের ধরে রাখতে প্রচুর ধৈর্য ও প্রাসঙ্গিক বিষয় হওয়া জরুরি।

৭. ওয়েব ডিজাইনঃ

এখনকার অনলাইনের কাজের ক্ষেত্রে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা ব্যাপক। কোনো প্রজেক্টে ২০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত সহজে আয় করা যায়। সব ব্যবসায়ী প্রযুক্তিপ্রেমী নন। নিজেদের ওয়েবসাইট তৈরিতে তাঁদের ওয়েব ডিজাইনারের দরকার পড়ে। যাঁরা ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে চান নিজেদের ওয়েবসাইট খুলে সেখান থেকেই ছোট ব্যবসা দাঁড় করাতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরিতে এখন কোডিং আর ওয়েব ডিজাইন দুটিই গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া ওয়েবসাইট ব্যবস্থাপনা ও হালনাগাদের জন্যও ওয়েব ডিজাইনারকে দরকার পড়ে। ফলে ডিজাইনারকে বসে থাকতে হয় না। ক্লায়েন্ট ও কাজের ওপর ভিত্তি করে ওয়েব ডিজাইনারের আয় বাড়তে থাকে।

৮. কনটেন্ট রাইটিংঃ

যাঁরা লেখালেখিতে ভালো এবং একাধিক ভাষায় সাবলীল লিখতে পারেন, তাঁদের কাজের জন্য বসে থাকতে হয় না। অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোতে কাজ করে বা লিখে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন। আর্টিকেল লেখার মানের ওপর ভিত্তি করে আয় আসে। কাজদাতা নির্দিষ্ট নীতি মেনে লেখার জন্য বলতে পারেন। নির্দিষ্ট বিষয় বা নিশ ধরে নিজের দক্ষতা বাড়াতে পারলে আয়ের ধারা বেড়ে যায়।

৯. ব্লগিংঃ

অনেকে শখ করে অনেক বিষয়ে লেখেন। কিন্তু শখের বিষয়টি যদি পেশাগত কাজে লাগাতে পারেন, তবে অনলাইনে আয় করতে পারবেন। ব্লগিং করেও আয় করার সুযোগ আছে। দুই উপায়ে ব্লগ থেকে আয় করা যায়। একটি হচ্ছে নিজের ব্লগ সাইট তৈরি। ওয়ার্ডপ্রেস বা গুগলের ব্লগিং প্ল্যাটফর্মে বিনা মূল্যে ব্লগ শুরু করতে পারেন। আবার চাইলে নিজে ডোমেইন হোস্টিং কিনে ব্লগ চালু করতে পারেন। তবে নিজে ব্লগ চালু করতে গেলে কিছু বিনিয়োগ করার দরকার হবে। ডোমেইন, হোস্টিং কিনতে হবে। নিজের ব্লগ শুরু করাটাই ভালো। কারণ, এতে নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী অনেক পরিবর্তন করার সুযোগ আছে। বিজ্ঞাপন, ফেসবুকের ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল, পণ্যের পর্যালোচনা প্রভৃতি নানা উপায়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারেন। তবে ব্লগ লিখে আয় করতে গেলে রাতারাতি আয় আসবে না। এ জন্য প্রচুর সময় ও ধৈর্য থাকতে হবে। অনেকের ব্লগ থেকে আয় করতে কয়েক বছর পর্যন্ত লেগে যায়। ব্লগে নিয়মিত কনটেন্ট আপডেটসহ তা সক্রিয় রাখতে কাজ করে যেতে হয়।

১০. ইউটিউবঃ

যাঁরা ব্লগ লিখে আয় করতে স্বচ্ছন্দ নন, তাঁরা ক্যামেরার সাহায্য নিয়ে ভিডিও তৈরি করে আয় করতে পারেন। এ জন্য অবশ্য সৃজনশীল এবং ভালো সম্পাদনা জানতে হবে। নিজের ইউটিউব চ্যানেল খুলে তাতে ভিডিও আপলোড করে সেখান থেকে আয় করতে পারেন। আপনার চ্যানেল কোন ক্যাটাগরির এবং তাতে কোন ধরনের ভিডিও রাখবেন, তা আগেই ঠিক করে রাখুন। যে বিষয়ে মানুষের আগ্রহ বেশি, সেই বিষয়ে ভিডিও না রাখলে মানুষ তা দেখবে না। ভিডিও না দেখলে আয় হবে না। বিষয়টি অনেকটাই ব্লগের মতো। তবে এ ক্ষেত্রে কনটেন্ট হচ্ছে ভিডিও। চ্যানেলের সাবসক্রাইবার ও ভিডিও দেখার সময় বাড়লে আয়ের সম্ভাবনা বাড়বে। প্রতি হাজার ভিউয়ের হিসাবে গুগল থেকে অর্থ পাবেন।

১১. ডেটা এন্ট্রিঃ

অনলাইনে সহজ কাজগুলোর একটি হচ্ছে ডেটা এন্ট্রি। এ ক্ষেত্রে অবশ্য আয় খুব কম। তবে এ ধরনের কাজ অটোমেশনের কারণে এখন খুব কম পাওয়া যায়। যাঁদের কম্পিউটার, ইন্টারনেট ও দ্রুতগতির টাইপিং দক্ষতা আছে, তাঁরা এ ধরনের কাজ করতে পারবেন। অধিকাংশ ফ্রিল্যান্সিং সাইটে এ ধরনের কাজ রয়েছে। তবে যাঁদের কোনো কাজে দক্ষতা থাকে, তাঁরা সহজে কাজ পান এবং দ্রুত আয় বাড়াতে পারেন।

Rafi Mahmud করেছেন (31 পয়েন্ট)
ধন্যবাদ সিফাত ভাই বিস্তারিত সুন্দর করে বুঝানোর জন্য
Faisal করেছেন (62 পয়েন্ট)
আমার এক ভাই প্লে স্টোর থেকে একটা এপস নামিয়ে সেখানে একাউন্ট করে নিয়মিত সেখানে বিজ্ঞাপন দেখে টাকা ইনকাম করে। এটা কতটুকু নির্ভর বা বিশ্বাস যোগ্য?
Rabby করেছেন (30 পয়েন্ট)
পোস্ট টি অনেক উপকারী ইন্টারনেটে এই রকম এত সাজানো গোছানো ভাবে কেও এইরকম একটা পোস্ট কেও করে না। যাই হোক পোস্ট টি পরে অনেক উপকৃত হলাম। ভবিষ্যতে আরও বিস্তারিত জেনে কাজ শুরু করতে চাই। তবে ভাই আপনার সহযোগিতা প্রয়োজন যদি আপনার কোন কন্টাক্ট নম্বর দেওয়া যায় তাহলে আপনার সাথে যোগাযোগ করতাম। অগ্রিম শুভেচ্ছা রইলো।
Majharul Islam করেছেন (99 পয়েন্ট)
জ্বি এইরকম অনেক থার্ডপার্টি অ্যাপস আছে যেগুলো থেকে ইনকাম করা যায়। তবে সব অ্যাপস বিশ্বাস যোগ্য নয়। সেটি আপনাকে বুজে নিতে হবে কোনটা ফেক আর কোনটা রিয়েল।
+1 টি ভোট
Limon করেছেন (101 পয়েন্ট) 3 টি সতর্ক
পূনঃপ্রদর্শিত করেছেন
http://mload.Xyz/?mref=108
থেকে আয় করতে পারেন।
+6 টি ভোট
Sajib Molla করেছেন (80 পয়েন্ট)
ইন্টারনেট থেকে ইনকাম করতে হলে আপনাকে যেকোনো একটি বিষয়ে দক্ষ হতে হবে। তাই আপনাকে আগে দেখতে হবে আপনি আসলে কি করতে চান। কারণ অনলাইনে কাজ করতে চাইলে প্রথম প্রথম আপনার ভাল লাগবে। কিন্তু পরে কিছুদিন পর দেখবেন কাজ করতে আর ভাল লাগছে না।

কারণ অনলাইন এর কাজগুলো বেশিরভাগ সময় বাসায় কম্পিউটার এর সামনে বসে করতে হয়। তাই আপনাকে আগে নিজের পছন্দ বুঝতে হবে। আপনি অনলাইন এ কাজ করতে পারবেন কিনা তা আপনাকে বুঝতে হবে। এবং আপনি যদি ঠিক করেন কাজ করবেন, তারপরে আপনাকে একটি নিশ ঠিক করতে হবে। অর্থাৎ আপনি কি নিয়ে কাজ করতে চান তা বার করতে হবে।

এবার আপনি যেই নিশটি পছন্দ করলেন তা শেখা শুরু করে দিন। এই বিষয়ে যেখানে যা পান তা পরা শুরু করুন। কাজ শিখতে শুরু করুন। এই সম্পর্কে যারা অভিজ্ঞ তাদের সাথে কথা বলা শুরু করুন। এভাবে আপনি কাজ শিখতে শুরু করবেন। তারপরে নিজেকে ঐ কাজে অভিজ্ঞ করে তুলুন।
+3 টি ভোট
Majharul Islam করেছেন (99 পয়েন্ট)
ইউটিউবে একটা চ্যানেল খুলে এবং তাতে ইউনিক ভিডিও আপলোড করে সেই ভিডিও থেকে আপনি ইনকাম করতে পারবেন
–1 টি ভোট
md nur islam করেছেন (1,278 পয়েন্ট)
ইন্টারনেটে বিভিন্ন ইনকাম সাইট আছে সেখান থেকে ইনকাম করতে পারেন।যেমন Jit.Com,2capcha,trikbd.Com ইত্যাদি
–1 টি ভোট
Asish করেছেন (918 পয়েন্ট)
অনলাইন জব করে
0 টি ভোট
Asish করেছেন (918 পয়েন্ট)
অনলাইনে এবং সাইট
0 টি ভোট
MISKHAN করেছেন (579 পয়েন্ট)
Post kore taka income kora jai
0 টি ভোট
Md Dipu Hasan করেছেন (2,332 পয়েন্ট)
Jit.Com থেকে ইনকাম করতে পারেন।
0 টি ভোট
Md Dipu Hasan করেছেন (2,332 পয়েন্ট)
সব গুলো কিন্তু ভাওতাবাজি নয় এর মধ্য সত্যও আছে যেমন Jit.Com এই সাইড থেকে ইনকাম করতে পারেন

সম্পর্কিত প্রশ্নসমূহ

5 টি উত্তর
8 টি উত্তর

345 টি প্রশ্ন

798 টি উত্তর

125 টি মন্তব্য

461 জন সদস্য


ইপ্রশ্ন ডটকম হল মাতৃভাষায় সহজে সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য অনলাইন মাধ্যম। যেখানে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন ধরনের কৌতুহল মূলক অজানা প্রশ্ন জিজ্ঞাসা ও উত্তর খুজে পাওয়ার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে, নির্বিশেষে সহজে সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলায় দৃড় অঙ্গীকার বদ্ধ।

  1. Md Dipu Hasan Md Dipu Hasan

    2332 পয়েন্ট

  2. Nishat Nishat

    57 পয়েন্ট

  3. md nur islam md nur islam

    54 পয়েন্ট

  4. hasibul islam hasibul islam

    24 পয়েন্ট

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

সাধারণ জ্ঞান . কোন দেশ কে ক্যান্সার বলা হয় ভিটামিন নামের অর্থ জানতে চাই তুলসী পাতা খাওয়ার উপকারিতা প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বিকাশ ইন্টারনেট অফার ওয়েবসাইট chatgpt বাংলাদেশ কয়টি জেলা অনলাইনে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায় ইন্টারনেট মেয়ের নাম openai শরীর এবং স্বাস্থ্য ভালো রাখার উপায় মেয়েদের ইসলামিক নাম download speed মোটা হওয়ার উপায় বাংলাদেশে গ্রাম কতটি বিভাগ সংখ্যা facebook সফটওয়্যার পাসপোর্ট ফেসবুক অ্যাপ বিদায়ী অনুষ্ঠান এমবি ভর্তি তথ্য টাকা পাঠানো সিলিং ফ্যান সাবমারসিবল পাম্প ভালোবাসা অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করার নিয়ম নতুন জন্ম নিবন্ধন আবেদন ফরম online birth registration application birth certificate chatgpt কি? ai স্বাস্থ্য ভালো রাখার টিপস ভাষা হিন্দি সাইন্স ফিকশন চোখের পাতা কাঁপা অনলাইন টাকা ইনকাম করার উপায় প্রশ্ন ও উত্তর দিয়ে টাকা ইনকাম করুন কলেজের বিদায়ী বক্তব্য স্কুলের বিদায়ী বক্তব্য বিদায়ী অনুষ্ঠানের বক্তব্য
1 জন অনলাইনে আছে
0 জন সদস্য 1 জন অতিথি
আজকের ভিজিটরঃ 876
গতকালকেঃ 902
মোট ভিজিটরঃ 1545494

বিঃ দ্রঃ ইপ্রশ্ন তে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন, উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের।

...